শনিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৩, ০৮:৩৩ অপরাহ্ন

অনলাইন ডেস্ক:
‘আমি গান ভুলে গেছি…হাসতে ভুলে গেছি, স্বপ্ন দেখতে ভুলে গেছি…আমি যে মিলা ইসলাম নিজেই ভুলে গেছি।’ নিজের বর্তমান অবস্থার কথা লিখতে গিয়ে আরো বেশি আবেগী হয়ে পড়েন এই গায়িকা মিলা ইসলাম।

তিনি বলেন, সেলিব্রিটি বলেই তাঁকে যাচ্ছেতাই ভাষায় অপমান করা হয়েছে সমাজে। যাঁরা এসব করেছেন তাঁদের হুঁশিয়ার করে দিয়ে লিখেছেন, ‘দুর্ভাগ্যক্রমে দেশের একজন মহিলা রকস্টার হওয়ার কারণে যারা আমার এই অপ্রত্যাশিত দুর্ঘটনার সুযোগে আমাকে লাঞ্ছিত করেছে…তাদের কাউকে আমি ছাড়ব না।

জেলে গেলেন সানজারি, জামিনে ছাড়াও পেলেন। এর পর থেকে আড়ালেই আছেন মিলা। নতুন গান, স্টেজ শো, পার্টি বা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম—কোথাও তিনি সেভাবে সরব নন। অবশেষে প্রায় সাত মাস পর মুখ খুললেন ‘শুকনো পাতা’র গায়িকা। বুধবার (৯ মে) দীর্ঘ একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক অ্যাকাউন্টে। শুরুতেই লেখেন, ‘সবাই অবাক হবেন, যখন জানতে পারবেন আমার সঙ্গে কী করা হয়েছে একটা মামলার জন্য।’

দশ বছর প্রেম করার পর গত বছরের ১২ মে বৈমানিক পারভেজ সানজারিকে বিয়ে করেছিলেন গায়িকা মিলা ইসলাম। বিয়েটা টিকে থাকলে আজ রাত ১২টা ১ মিনিটে প্রথম বিয়েবার্ষিকী উদ্‌যাপন করতে পারতেন তাঁরা। তা আর হলো কই! বিয়ের পাঁচ মাসের মাথায় বিচ্ছেদে গিয়ে ঠেকল। শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতনের অভিযোগ এনে অক্টোবরে সানজারির বিরুদ্ধে মামলা করেছিলেন মিলা।

সাবেক স্বামীকে উদ্দেশ করে লেখেন, ‘হ্যাঁ, ভালোবেসেছিলাম আমি। কিন্তু এই ভালোবাসা যেভাবে আমার মান-সম্মান, আমার আত্মাকে ধর্ষণ করে, জেলে থাকা অবস্থায় নিজের গুনাহ চাপা দিতে যে এতগুলো মানুষ দিয়ে প্রতিশোধ নেওয়ার চেষ্টা করে, তাকে আমি ঘেন্না করি।’

কিভাবে সাক্ষী ও মেডিক্যাল রিপোর্ট গায়েব করার চেষ্টা করা হয়েছে, হুমকি দিয়ে এবং সামাজিকভাবে বদনাম করে তাঁর জীবনটাকে অন্ধকারে ঢেকে দেওয়া হয়েছে এভাবেই লিখেছেন মিলা। অভিযোগ প্রমাণ করে চার্জশিট দাখিল করার পরও কিভাবে ২০ দিনের মধ্যে জামিন নিয়ে ছাড়া পেয়ে গেলেন সানজারি, এ নিয়ে বিস্ময় প্রকাশ করেন এই গায়িকা।

আরও পড়ুন

%d bloggers like this: