সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ১০:০৬ অপরাহ্ন

অনলাইন ডেস্ক:

ফেসবুকে নিজের পোস্ট ছাড়া অন্য কারও পোস্টে আর দেখা যাবে না লাইক সংখ্যা। এই অপশন তুলে নেয়ার চিন্তাভাবনা করছে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ। তাই কোন পোস্টে কত লাইক পড়বে তা জানা যাবে না।

সম্প্রতি সাতটি দেশে ইনস্টাগ্রামের জন্য এই ফিচারের পরীক্ষা চলছে। ইনস্টাগ্রামের মতো সিদ্ধান্তটি ফেসবুকেও চালু হতে পারে।

প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ জেন ম্যানচুন ওং-এর মতে, ফেসবুক পোস্টে কত লাইক পড়েছে তা গোপন রাখার ফিচারের ওপর পরীক্ষা করছে এবং এই ফিচারটি বিশেষ করে অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপের জন্য সুবিধাজনক হবে।

প্রযুক্তিবিষয়ক ওয়েবসাইট টেকক্রাঞ্চ জানায়, ফেসবুক নিউজফিড পোস্ট থেকে লাইকের সংখ্যা গোপন রাখবে, এতে অনেক ব্যবহারকারীর গোপনীয়তা বজায় থাকবে।

ইনস্টাগ্রামে পরীক্ষার সময় পোস্টদাতা কত লাইক পেলেন, তা জানতে পারেন কিন্তু তার অনুসারীরা তা দেখতে পাননি। তবে এ পরীক্ষার ফল এখনও প্রকাশ করেনি ফেসবুক কর্তৃপক্ষ।

যুক্তরাষ্ট্রে দর্শক নেই নোবেলের কনসার্টে: হতাশ আয়োজকরা
অনলাইন ডেস্ক;:
যুক্তরাষ্ট্রের কানেকটিকাট অঙ্গরাজ্যে অনুষ্ঠিত হলো ‘সা রে গা মা পা’র দ্বিতীয় রানারআপ বিজয়ী মাঈনুল আহসান নোবেলের একক সঙ্গীতানুষ্ঠান। বাংলাদেশি ফ্রেন্ডস অ্যান্ড ফ্যামিলির আয়োজনে শনিবার (৩১ আগস্ট) ম্যানচেস্টারের ইস্ট ক্যাথলিক হাইস্কুলে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। তবে সঙ্গীতানুষ্ঠানে আশানুরূপ লোক সমাগম না হওয়ায় হতাশ হয়েছেন শিল্পীসহ আয়োজকরা।

নোবেলের ‘একক সঙ্গীত সন্ধ্যা’ হিসেবে প্রচার করা হলেও কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তে অনুষ্ঠানে আরও দুজন শিল্পী সঙ্গীত ও নৃত্য পরিবেশন করেন। যা ‘দৃষ্টিকটু’ বলে মন্তব্য করেছেন অনেকেই। নির্দিষ্ট সময়ের ২ ঘণ্টা বিলম্বে শুরু হয়ে সাড়ে ১০টা পর্যন্ত চলে এ অনুষ্ঠান। জনপ্রতি ২০ ও ভিআইপি ৫০ ডলার হারে টিকিটের মূল্য নির্ধারণ করা হয়। আয়োজকরা চার শতাধিক দর্শক আশা করেছিলেন কিন্তু মাত্র দুইশোর মতো টিকিট বিক্রি হয়েছে বলে জানান বাংলাদেশি ফ্রেন্ডস অ্যান্ড ফ্যামিলির অন্যতম কর্মকর্তা সাদ চৌধুরী বাবু।

ঘগভারতীয় টিভি চ্যানেল জি বাংলায় গানের রিয়েলিটি শোতে বাবার প্রতি ভালোবাসার জেমসের সেই বিখ্যাত ‘বাবা গান’ দিয়েই শুরু করেন নোবেল। ‘সা রে গা মা পা’র দ্বিতীয় রানারআপ বিজয়ী হবার পর মাঈনুল আহসান নোবেলের দেশের বাইরে এবং যুক্তরাষ্ট্রে এটাই প্রথম সঙ্গীতানুষ্ঠান। দর্শক উপস্থিতি কম দেখে আয়োজকবৃন্দের পাশাপাশি শিল্পী নিজেও হতাশ হয়ে পড়েন। এ প্রসঙ্গে দর্শকদের উদ্দেশে নোবেল বলেন, ‘আগামীতে আবারও কানেকটিকাটে আসব, তখন যেন দর্শক সংখ্যা আরও বৃদ্ধি পায়।’ উপস্থিত অনেক দর্শক নগর বাউল জেমসের গাওয়া ‘বাংলাদেশ’ গানটি গাওয়ার অনুরোধ করলে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে গানটি নিয়ে অনেক ঝামেলা হয়েছে, তাই তিনি এ গানটি আর গাইবেন না।’ জি বাংলার ‘সা রে গা মা পা’ তে অংশ নিয়ে দুই বাংলার মানুষের মন জয় করেছেন বাংলাদেশের ছেলে মাঈনুল আহসান নোবেল। দর্শক ভোটে বারবার সেরা হওয়ার পাশাপাশি বিচারকদের কাছ থেকে সবসময় উচ্ছ্বসিত প্রশংসা পেয়েছেন। ‘সা রে গা মা পা’র এবারের প্রতিযোগিতায় প্রথম হয়েছেন অঙ্কিতা। যৌথভাবে প্রথম রানারআপ গৌরব ও স্নিগ্ধজিৎ এবং দ্বিতীয় রানারআপ হয়েছেন প্রীতম ও মাঈনুল আহসান নোবেল। গোপালগঞ্জের সন্তান নোবেল ছোটবেলা থেকেই গানের সঙ্গে মিতালি গড়েছেন। কোনো গুরুর কাছে শিক্ষা না নিলেও আগে বাংলালিংক নেক্সট টিউবার প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে সেরা ৬-এ এসেছিলেন তিনি। আয়েশা দেওয়ান লিপির সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে মরিয়ম মারিয়া ও রাশিদা আখন্দ লাকী সঙ্গীত পরিবেশন করেন। এ ছাড়াও নৃত্য পরিবেশন করেন রোকাইয়া রেখা। শিল্পীদের যন্ত্রে সহযোগিতা করেন গিটারে শুভম মিত্র, ড্রামে সাইদুজ্জামান রিড ও কীবোর্ডে জুয়েল। অনুষ্ঠান সহযোগিতায় ছিলেন সাদ চৌধুরী বাবু, হারুন আহমেদ, জাহেদ চৌধুরী লিটন, মোহাম্মদ শরীফুল আহসান হেলাল, কবির আখন্দ, মোল্লা বাহাউদ্দিন পিয়াল, নিরা বাহাউদ্দিন, রাশিদা আখন্দ লাকী, মামুন সরকার ও লাইলাক আহমেদ। এসআর/পিআর

আরও পড়ুন

%d bloggers like this: