Jago Comilla

কুমিল্লার খবর সবার আগে

কুমিল্লার খবর

কুমিল্লা নগরীতে মই থেকে পড়ে ডিস মিস্ত্রির মর্মান্তিক মৃত্যু

( জাগো কুমিল্লা.কম)
কুমিল্লা মহানগরীর তালপুকুরপাড় মই থেকে পরে গিয়ে ডিস মিস্ত্রি সুজন (৩৭) এর করুণ মৃত্যু হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার বিকেল ৪টায় কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের ১০ নং ওয়ার্ডের তালপুকুরপাড় জাকির গোল্ড সিলভার হোমস্ এর সামনে এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয়রা জানিয়েছেন কুমিল্লা ক্যাবল টিভির সত্ত্বাধিকারী আসফাকুর রহমান চৌধুরী মনিরের অধিনে চাকুরী করতেন সুজন।

বৃহস্পতিবার বিকাল ৪টায় সুজন ডিস সংযোগ সমস্যা হওয়ায় জাকির গোল্ড সিলভার হোমস্ এর সামনে মই নিয়ে কাজ করতে যায়। ঐ বাড়ির সামনে কাজ করার এক পর্যায়ে মই থেকে পরে যাওয়ার সাথে সাথে সে মাটিতে পড়ে গেলে কান বেঁয়ে রক্ত ঝড়তে থাকে । সে সময় তার সাথে যাওয়া অপর সহকারী ডিস মিস্ত্রি নিছে মই ধরে দাড়িয়ে ছিলো। উপর থেকে পরে একটি চিৎকার দিলে আশপাশের লোকজন দ্রুত তাকে উদ্ধার করে প্রথমে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল নিয়ে যায়। হাসপাতালের কর্তব্যরত ডাক্তাররা প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে রক্ত বন্ধ করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করে। পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর কর্তব্যরত ডাক্তাররা সুজনকে মৃত ঘোষনা করে।

এদিকে স্থানীয় একজন জানান যখন সুজন ডিসের তার ঠিক করার জন্য উঠতে চেয়েছিল সুজন। তখন আজানের সময় হয়েছে বলে সুজন কে উপরে উঠতে বারণ করছিল। এরপরও সে সমস্যা নেই বলে উঠে গিয়ে করুণ মৃত্যুর শিকার হয়।

স্থানীয়রা জানান সুজন ১জন মেয়ে, ১জন ছেলে, ১জন ভাই, ৩ বোন, বৃদ্ধা মা ও তার স্ত্রী কে রেখেই এই দুনিয়ার মায়া ত্যাগ করে ঐ দুনিয়ায় চলে গেছে। সুজন সবার বড় ছিল। গতকাল দুপুরে নিহতের বাড়ীতে গেলে দেখা যায় সুজনের মা পুত্রশোকে মাথা আছড়াচ্ছে। তার মার আর্তনাদে আকাশ বাতাস ভাড়ি হয়ে উঠছে। পাড়া পড়শি আত্বীয় স্বজন সুজনের মৃত্যুতে হতভাগ। অনেকেই বলেন অত্যান্ত ভদ্র ও ৫ ওয়াক্ত নামাজি এই ছেলেটি এভাবে মারা যাবে বিশ্বাসই হচ্ছে না।

বাড়ীর লোকজন জানান,নিহত সুজনের টাকায় পুরা সংসার চলে। ১৯৯৬ সাল আগে সেই একজনের সহযোগীতায় ডিস লাইনের কাজে গিয়েছিল। সেখানে ৩ মাস ইলেক্ট্রিকের কাজ শিখার পর থেকেই ডিস ব্যবসায় মাসিক ৭ হাজার বেতনে চাকুরি নেয়। পর পর বর্তমানে ১৬ হাজারের উপরে বেতন পেয়ে ভাল ভাবেই সংসার চালাচ্ছিল সুজন, গতকাল ফজর নামাজ শেষে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যায়। সুজন অল্প বয়সে স্বজনদের রেখেই তার করুণ মৃত্যু সহজেই কেউ মেনে নিতে পারছে না। লাশ পোষ্ট মটেম না করে দাফনের কাজ সম্পর্ণ হয়েছে।

পরে জানাযাতে হাজার হাজার মানুষের সামনে কুমিল্লা ক্যাবল অপারেটরের সত্ত্বাধিকারী মোঃ আসফাকুুর রহমান চৌধুরী মনির বক্তব্যে বলেন আজ থেকে সুজনের পরিবারের দায়িত্ব তিনি নিয়েছেন, ঘর, বাড়ি, মানুষের পাওনা টাকা, ছেলে, মেয়ে ও বৃদ্ধা মাসহ পরিবারের সকলের সব সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দেন। জানাযাতে ইউনুছ মেম্বার বলেন মিজান ওরফে সুজনের কাছে এক জন ১লক্ষ ৭০ হাজার টাকা পায়, তখন মনির আরো জানান আমি সব কিছুর দায়িত্ব নিয়েছি, এবং সুজনের কাছে টাকা পাওনা থাকলে পরিশোধ করে দিবো।

সুজনের আত্বীয় স্বজনরা জানান – মনির সাহেব জানাযাতে বলেছে পরিবারের দায়িত্ব নিয়েছে, কতটুকু হবে আল্লাহ জানে, আমরা জানি মনির সাহেব খুব ভাল একজন মানুষ। তিনি সুজন কে অনেক স্নেহ করত এটাও জানি। এখন তাদের একটাই দাবী মনির সাহেব যেন মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তাদের কে দেখে। সুজনের লাশ জানাযা শেষে পারিবারিক কবর স্থানে দাফন করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *