শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৮:৫০ অপরাহ্ন

লাকসাম প্রতিনিধি:
কুমিল্লার লাকসামে স্কুল মাঠ থেকে ডেকে এনে কাঁচা আমের প্রলোভন দেখিয়ে চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে।ঘটনাটি ঘটেছে শনিবার (১২ মে) বিকেলে উপজেলার কান্দিরপাড় ইউনিয়নের কামড্যা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশের বাজারের একটি দোকানে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, উপজেলা কান্দিরপাড় ইউপির কামড্যা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৪র্থ শ্রেণির ছাত্রী শনিবার দুপুরে স্কুল চলাকালীন টিফিনের সময় বান্ধবীদেরকে নিয়ে মাঠে খেলা করছিলো। এসময় কামড্যা উত্তরপাড়া গ্রামের কুদ্দুসুর রহমান (৬০) ব্যবসায়ী আমের প্রলোভন দেখিয়ে ওই স্কুল ছাত্রীকে নিজের দোকানের পিছনে ছোট একটি ঘরে নিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়।

ওই বাজারের দর্জি দোকানদার বিষয়টি দেখতে পেয়ে আশেপাশের লোকজনকে জানালে স্থানীয়রা এসে কুদ্দুসকে স্কুলের একটি কক্ষে আটক করে রাখে। ওইদিন রাতে স্কুল মাঠে স্থানীয় লোকজন জড়ো হয়ে সালিশ বসে। সালিশের মাধ্যমে সিদ্ধান্ত দেয় বিচারকরা। কুদ্দুসকে মারধর করে এবং ১ লাখ টাকা জরিমানা ও জুতার মালা গলায় পড়িয়ে দেয়।

কামড্যা গ্রামের লুৎফুর রহমান ও পরাণ বলেন, ওইদিন দুপুরে ৪র্থ শ্রেণির ছাত্রীকে স্কুল মাঠ থেকে ডেকে এনে দোকানের পিছনে একটি কক্ষে ধর্ষণের চেষ্টা চালায় ব্যবসায়ী কুদ্দুস। এ ঘটনা নিয়ে রাতে স্থানীয় গন্যমান্য ব্যাক্তিদেরকে নিয়ে সালিশ বসি। ঘটনার বিস্তারিত জানার পর ওই ব্যাক্তিকে ১ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। ওই গ্রামের এমদাদ মিয়া বলেন, ঘটনার সময় আমি ছিলাম না। পরে জানতে পারলাম বিষয়টি। স্থানীয় লোকজনের মাধ্যমে যে সিদ্ধান্ত দেয়া হয়েছে সেই সিদ্ধান্ত মোতাবেক জরিমানা করা হয়েছে।

এ বিষয়ে কুদ্দুসুর রহমান বলেন, আমার নামে যে অভিযোগ উঠে এসেছে সেটি সম্পূর্ন মিথ্যা ও বানোয়াট। স্কুল ছাত্রী শিশুর উপর অমানবিক নির্যাতনের অভিযোগ এনে সালিশের মাধ্যমে আমাকে দোষারোপ করে মারধরসহ ১ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে, যা সম্পূর্ণ জুলুম এবং উদ্দেশ্য প্রণোদিত।

আরও পড়ুন

%d bloggers like this: