বৃহস্পতিবার, ২৬ মে ২০২২, ০৪:৫৪ পূর্বাহ্ন

জেলা প্রতিনিধি, কুমিল্লা

মোবাইল কোর্ট পরিচালনার সময় মাটি কাটার এক্সকাভেটর পুড়িয়ে দেয়ার অভিযোগে কুমিল্লা চৌদ্দগ্রাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাএস এম মঞ্জুরুল হক এর বিরু‌দ্ধে মামলা দায়ের করেছে একেএম সে‌লিম নামে এক ব্যাক্তি।

বৃহস্পতিবার ( ৩ ফেব্রুয়ারি) দুপুর ১২ টায় কুমিল্লার সিনিয়ির জু‌ডিসিয়াল ম‌্যা‌জি‌স্ট্রেট ৫ নং আমলী আদালতে মামলা দায়েন করেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মামলার আইনজীবী এডভোকেট মাসুদ সালাউদ্দীন।

তিনি জানান, ক্ষ‌তিপূরণ দাবী ক‌রে কৃষক সে‌লিম বাদী হ‌য়ে চৌদ্দগ্রা‌মের উপ‌জেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এসএস মঞ্জুরুল হক এর বিরু‌দ্ধে জু‌ডিসিয়াল ম‌্যা‌জি‌স্ট্রেট আদাল‌তে মামলা ক‌রেন। আদালতের বিচারক ফারহানা সুলতানা মামলা‌ আম‌লে নি‌য়ে পি‌বিআই‌কে তদন্ত করার নি‌র্দেশ দেন।

মামলার বাদী একেএম সে‌লিম জানান, গত ১৯ জানুয়ারি চৌদ্দগ্রাম জিগীরকান্দি এলাকায় ক্ষমতার অপব্যবহার করে কুচক্রী মহলের ইন্দনে পরিকল্পিত ভাবে এই কাজ করেছে ইউএনও। আমার ভাড়া করা ৪টি এক্সকাভেটর ভাংচুর করে আগুন লাগিয়ে পুড়ে ফেলে। যার ফলে আমার কোটি টাকা ক্ষতি করেছে। খালের পাড়ের স্তুপের মাটি কাটার জন্য পানি উন্নয়ন বোর্ড নিকট আবেদন করেছি। অনুমুতির আপেক্ষায় ছিলাম। ঘটনাস্থল থেকে দূরে এক্সকাভেটর গুলো রাখা ছিল। সেখানে গিয়ে আগুন লাগিয়ে দেয়া হয়। এ সময় আরেক ব্যক্তি প্রতিবাদ করায় তাকে এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। উক্ত ক্ষতিপূরণের দাবিতে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

তবে খালের পাড়ের মাটি কারা কাটল এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, কে বা কারা মাটি কেটে আমরা জানি না। তবে আমরা এক্সকাভেটর এনে অনুমতির অপেক্ষায় ছিলাম।

এ বিষয়ে জানতে কুমিল্লা চৌদ্দগ্রাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাএস এম মঞ্জুরুল হকে জানান, মামলা বিষয়টি উদ্দেশ্য প্রনোদিত। খালের পাড় কেটে একেবারে সাবার করে ফেলেছে এই চক্র। অবৈধভাবে মাটি কাটার সময় এসব এক্সকাভেটর জব্দ করা হয়। এসময় মাটি বিক্রির অভিযোগে ২ ব্যক্তিকে ৬ লাখ টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমান আদালত।

আরও পড়ুন

%d bloggers like this: