শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৬:১৮ পূর্বাহ্ন

(বারী উদ্দিন আহমেদ বাবর, কুমিল্লা )
কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের মিয়া বাজার হাইওয়ে পুলিশের বিভিন্ন অনিয়ম ও নির্যঅতনের অভিযোগে বিক্ষোভ করেছে সিএনজিচালিত ও ব্যাটারিচালিত অটোরিকশার চালকরা। বিক্ষোভের কারণে ভোগান্তি পোহাতে হয় যাত্রীদের। আজ সোমবার (৪ জুন) সকালে উপজেলার আটগ্রামে প্রায় ঘন্টাব্যাপী এ বিক্ষোভ চলে। পরে চৌদ্দগ্রাম থানা পুলিশ এসে আলোচনা সাপেক্ষে এর সমাধান করার আশ^াস দিয়ে সরিয়ে নেয়।

চৌদ্দগ্রাম অটোরিকশা মালিক সমিতির সভাপতি জামাল উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক ছুট্টু মিয়া মুন্সি ও যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আবদুল জলিল মোল্লা অভিযোগ করে বলেন, মিয়াবাজার হাইওয়ে পুলিশ প্রায় সময় অভিযানের নামে ব্যাটারিচালিত ও সিএনজিচালিত অটোরিকশা আটক করে। পরে ৮-১০ হাজার টাকা আদায় করে ছেড়ে দেয়।

অনেক সময় একই গাড়ি মাসে দুই বা তিনবারও আটক করে। টাকা না দিলে বা প্রতিবাদ করলে চালকদের মারধর করা হয়। পুলিশের এসব অনিয়মের প্রতিবাদে শ্রমিকরা বিক্ষোভ করছেন। এছাড়া পৌর মেয়র মিজানুর রহমানকে বিষয়টি অবহিত করেছেন বলেও জানান তারা।এরআগে গত ২ জুন অটোরিকশা আটককে কেন্দ্র করে উপজেলার নোয়াপাড়া এলাকায় জনতার সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছিল।

বিক্ষোভ চলাকালীন সময়ে খবর পেয়ে চৌদ্দগ্রাম থানার ওসি (তদন্ত) শুভ রঞ্জন চাকমার নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পরে পৌর মেয়র মিজানুর রহমানের কার্যালয়ে এ নিয়ে বৈঠকের মাধ্যমে সমাধান করা হয়।
চৌদ্দগ্রাম থানার ওসি (তদন্ত) শুভ রঞ্জন চাকমা জানান, খবর পেয়ে আমি সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে গিয়ে বিক্ষোভ বন্ধ করে দেই।

এরপর হাইওয়ে পুলিশ ও অটোচালকদের নিয়ে মেয়র মিজানুর রহমানের কার্যালয়ে বসে এর সমাধান করা হয়। তিনি বলেন, অটোচালকদের রাষ্ট্রীয় নির্দেষনা মেনে মহাসড়কে না উঠার জন্য বলা হয়। হাইওয়ে পুলিশকেও বলা হয়েছে অহেতুক যেন অটোচালকদের হয়রানি করা না হয়। এ ব্যাপারে মিয়াবাজার হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মঞ্জরুল হক বলেন, মিটিংয়ে ব্যস্ত আছি। তবে অভিযোগ সত্য নয়।

আরও পড়ুন

%d bloggers like this: