বুধবার, ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৮:১৬ পূর্বাহ্ন

নিজস্ব প্রতিবেদক:

কুমিল্লায় দুই দিনের ব্যবধানে করোনা আক্রান্ত হয়ে  মা-মেয়ের মৃত্যু হয়েছে।  গত ৯ আগস্ট রাত ১ টায় কুমিল্লা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান  ফাতেমা বেগম(৫৮) । দুইদিন পর  বুধবার  (১১ আগষ্ট) সকালে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান ফাতেমা বেগমের মা জয়নব বিবি(৮০)।  নিহত ফাতেমা কুমিল্লা সিটির ২৪নং ওয়ার্ড সালমানপুর এলাকার মৃত সিরাজুল ইসলামের স্ত্রী।   জয়নব বিবি  বরুড়া উপজেলার ২নং ভবানীপুর ইউনিয়নের উত্তর লক্ষীপুর এলাকার মৃত মোঃ আবদুল লতিফের স্ত্রী । দুই দিনের ব্যবধানে করোনায় মা- মেয়ের মৃত্যুতে পরিবারে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

এ বিষয়ে ফাতেমা বেগম এর ছেলে সাইদুল ইসলাম সাইদ বলেন,  কোরবানির ঈদের পর ২৭ আগস্ট  আমার নানু জয়নব বিবি আমাদের বাড়িতে বেড়াতে আসেন ।একদিন পর তিনি জ্বরে আক্রান্ত হয়েছিল । জ্বর কিছুটা কমে যাওয়ায় তিনি বরুড়া নিজ বাড়িতে চলে যান । নানু বাড়ি যাওয়ার দুইদিন পর আমার মায়ের জ্বর আসে। ৮ আগষ্ট শ্বাসকষ্ট বেড়ে যাওয়ায় কুমিল্লা সদর হাসপাতলে ভর্তি করানো হয় । তখন মায়ের অক্সিজেন লেভেল ৩৫ ছিল । ডাক্তার বার বার বলেছিল আইসিইউ ব্যবস্থা করার জন্য কিন্তু কোথাও খালি পাইনি। ৯ আগস্ট রাত ১  টার পর আমার মা না ফেরার দেশে চলে যায় ।

সাইদ আরও বলেন,  আম্মুকে হসপিটালে ভর্তির একদিন  আগে ৭ আগষ্ট নানুর শ্বাসকষ্ট ও ডায়াবেটিকস বেড়ে যায় । তখন তাকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করানো হয় । আম্মুর দাফন সম্পন্ন করে ১০ আগস্ট নানুকে হাসপাতালে দেখতে যাই । ওনারও অক্সিজেন লেভেল কমে গিয়েছিল। বুধবার সকালে (১১ আগস্ট) তিনিও না ফেরার দেশে চলে যান । দুইদিনের ব্যবধানে মা ও নানুকে হারিয়ে আমরা মানসিক ভাবে ভেঙ্গে পড়েছি।

দাফন সংগঠন বিবেক” এর প্রতিষ্ঠাতা-চেয়ারম্যান ইউসুফ মোল্লা টিপু’র নেতৃত্বে  দুইজনের  গোসল-কাফন-জানাজা সম্পন্ন করেন। ইউসুফ মোল্লা টিপু বলেন, আমাদের   ৩৭৭ ও  ৩৯৩তম মরদেহ দাফনটি ছিল মেয়ে ও মায়ের । করোনার শুরু থেকে  এমন অনেক হৃদয়বিদারক ঘটনার স্বাক্ষী হয়েছি। বর্তমানে মৃত্যু সংখ্যা এতটা বেড়েছে আমারা কয়েকটি টিমে ভাগ হয়েছি। তবুও লাশ দাফনে হিমশিম খেতে হচ্ছে । বুধবার রাত ১১ টা পর্যন্ত সারাদিনে ১০টি মরদেহ দাফন করেছি।  দোয়া করি মহান আল্লাহ তায়ালা যেন সবাইকে বেহেশত নসীব করেন।

আরও পড়ুন

%d bloggers like this: