শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ০৯:১২ অপরাহ্ন

অনলাইন ডেস্ক:
আসন বণ্টন নিয়ে ঐক্যফ্রন্ট ও বিএনপির দর-কষাকষি নিয়ে একটি অডিও ক্লিপ ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। অডিও ক্লিপটিতে কথোপকথনে অংশ নিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি ও বিএনপিপন্থি বুদ্ধিজীবী অধ্যাপক ড. এমাজউদ্দীন আহমেদ এবং বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড.খন্দকরার মোশাররফ হোসেন।

এই কথোপকথনে আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আসন বন্টন নিয়ে ঐক্যফ্রন্ট এবং বিএনপির বিবাদমান পরিস্থিতিই আলোচ্য বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে।

মোশাররফ হোসেন ঐক্যফ্রন্টের ৪০ টি আসন চাওয়ার বিষয়টি নিয়ে এমাজউদ্দীনের কাছে দুঃখ প্রকাশ করেন। অপরপ্রান্তে ড.এমাজউদ্দীনও বিষয়টিকে নেতিবাচক হিসেবে দেখেন বলে ফাঁসকৃত এই অডিওক্লিপে শোনা যায়।

ড. এমাজউদ্দীন: কেমন আছেন? রাত ধরে পরিশ্রম করছেন এমন সময় কাটছে? ঐক্যফ্রন্ট কি বেশি দাবি দাওয়া করছে নাকি?

খন্দকার মোশাররফ: হ্যাঁ, হ্যাঁ, দাবিদাওয়ার শেষ নাই। মান্নার তো পার্টির কোন নিবন্ধন নাই। মান্নাকে একটা সিট দিতে হইলে আমার বগুড়ার একটা পাশ করা ক্যান্ডিডেটের গলা কাইট্টা দিতে হইব।

ড. এমাজউদ্দীন : আহারে

খন্দকার মোশাররফ: একটা পাইলে আমাদের এত বড় ক্ষতি হবে যে বগুড়ায় আমাদের তিনবারের পাশ করা এমপিদের বসে থাকতে হবে। আর সে যদি চল্লিশটা চায়…

ড. এমাজউদ্দীন : চল্লিশটা! না না না মনে হচ্ছে যে বিএনপিকে উদ্ধার করার জন্য তারা নেমেছে…

খন্দকার মোশাররফ: তাদের এমন ভাবনার কারণে আমি খুবই বিচলিত। আমার সাথে যে লোকজন তাদের সঙ্গে ভালো ব্যবহার করি। আপনি বলেন না এইটার কোন যুক্তি আছে? রবকে যদি আমরা ঢাকায় দেই তাহলে সে হয়ত পাশ ও করবে। সেখানে লক্ষ্মীপুরে গেলে সে অবধারিত পাশ করবে না। এই রবের নিজামের কাছে জামানত বাজেয়াপ্ত হইছে। সে গোয়ার্তুমি করতেছে। সেইখানে ইলেকশন করলে সে অবধারিতভাবে ফেইল করবে।

ড. এমাজউদ্দীন :এইটা তো ব্ল্যাকমেইলিং এর ব্যাপার মনে হচ্ছে।

এছাড়া কথোপকথনের শেষ দিকে লিফলেট বিতরণে এবং লোক সমাগমে বিএনপি লোক এনে দেয় বলে দাবি করেন খন্দকার মোশাররফ। তিনি আরো দাবি করেন যে আমরাই ভোটার লিফলেট সব যোগাড় করে দিবো আর তারা নির্বাচন করবেন। এর প্রেক্ষিতে ড. এমাজউদ্দীন বলেন, ‘এগুলো খুব খারাপ কথা’।

নিচের লিংকে ক্লিক করুন।

অডিও ক্লিপটি সংশ্লিষ্ট লিংকসহপাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো।

সূত্র-সময় নিউজ

আরও পড়ুন

%d bloggers like this: